ঢাকা ০৬:২১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রিকশাচালক তৈয়ব আলী’র ঈদ উপহার প্রাপ্তির আনন্দ

গাজী তাহের লিটন:​ ভোলার বোরহানউদ্দিনের ৪ নং কাচিয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সেই দরিদ্র রিকশাচালক তৈয়ব আলীকে ঈদ উপহার হিসেবে খাদ্যসামগ্রি তুলে দিলেন স্থানীয় এলাকার তিন যুবক। এরা হলেন, সৈয়দ ওমর ফারুক সোহান, কালিমউল্যাহ্ হাসিব,ব্যবসায়ী মো. মনির।মহানুভব এ তিন ব্যক্তিকে সমন্বয় করেন, সাংবাদিক ও লেখক গাজী তাহের লিটন।উপহার পেয়ে বুকের ভেতর কষ্ট চেপে হাসলেন তৈয়ব!আজ রবিবার সকালে এ উপহার সামগ্রি তাকে তুলে দেয়া হয়।​
তৈয়ব আলীকে প্রদত্ত উপহারের মধ্যে রয়েছে, চাউল, মশুরি ডাল, সোয়াবিন তেল, চিনি, লবণ, ডিটারজেন্ট পাউডার, বিস্কিট, মাস্ক ও সাবানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র।​
তরুণ সংগঠক কালিমুল্লাহ বলেন, হতদরিদ্র রিকশা চালক তৈয়ব আলী দীর্ঘ ৩০ বছর পায়ে চেপে রিকশা চালিয়ে ৫ জনের সংসার চালায়। জীবন চলে বহুকষ্টে! ব্যাটারিচালিত রিকশাও কিনতে পারেনি! সে সরকারি কোনো ত্রাণ বা, সাহায্যও পায়নি।
অনুরূপভাবে ফারুক সোহান বলেন, করোনা সংকটে এই রিকশাচালক বেকার হয়ে পড়ে !তাঁকে সাহায্য করা বিত্তবানদের মানবিক দাযিত্ব। কিন্তু, সেটা সে পায়নি।আমরা সাধ্যমতো যৎসামান্য ঈদ উপহার দিয়েছি।
এ প্রসংগে নন্দিত শিক্ষক প্রভাষক জাকারিয়া আজম মতামত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, মানবতার জন্য কাজ করতে পারাই একজন সৎ মানুষের আদর্শ হওয়া উচিত।​
উল্লেখ্য,এ প্রতিবেদক রিকশাচালক তৈয়বআলীকে নিয়ে অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশ করলে সচেতন মহলের নজরে আসে।
ট্যাগস

রিকশাচালক তৈয়ব আলী’র ঈদ উপহার প্রাপ্তির আনন্দ

আপডেট সময় ১১:৫৮:৪৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুলাই ২০২১
গাজী তাহের লিটন:​ ভোলার বোরহানউদ্দিনের ৪ নং কাচিয়া ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সেই দরিদ্র রিকশাচালক তৈয়ব আলীকে ঈদ উপহার হিসেবে খাদ্যসামগ্রি তুলে দিলেন স্থানীয় এলাকার তিন যুবক। এরা হলেন, সৈয়দ ওমর ফারুক সোহান, কালিমউল্যাহ্ হাসিব,ব্যবসায়ী মো. মনির।মহানুভব এ তিন ব্যক্তিকে সমন্বয় করেন, সাংবাদিক ও লেখক গাজী তাহের লিটন।উপহার পেয়ে বুকের ভেতর কষ্ট চেপে হাসলেন তৈয়ব!আজ রবিবার সকালে এ উপহার সামগ্রি তাকে তুলে দেয়া হয়।​
তৈয়ব আলীকে প্রদত্ত উপহারের মধ্যে রয়েছে, চাউল, মশুরি ডাল, সোয়াবিন তেল, চিনি, লবণ, ডিটারজেন্ট পাউডার, বিস্কিট, মাস্ক ও সাবানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র।​
তরুণ সংগঠক কালিমুল্লাহ বলেন, হতদরিদ্র রিকশা চালক তৈয়ব আলী দীর্ঘ ৩০ বছর পায়ে চেপে রিকশা চালিয়ে ৫ জনের সংসার চালায়। জীবন চলে বহুকষ্টে! ব্যাটারিচালিত রিকশাও কিনতে পারেনি! সে সরকারি কোনো ত্রাণ বা, সাহায্যও পায়নি।
অনুরূপভাবে ফারুক সোহান বলেন, করোনা সংকটে এই রিকশাচালক বেকার হয়ে পড়ে !তাঁকে সাহায্য করা বিত্তবানদের মানবিক দাযিত্ব। কিন্তু, সেটা সে পায়নি।আমরা সাধ্যমতো যৎসামান্য ঈদ উপহার দিয়েছি।
এ প্রসংগে নন্দিত শিক্ষক প্রভাষক জাকারিয়া আজম মতামত ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, মানবতার জন্য কাজ করতে পারাই একজন সৎ মানুষের আদর্শ হওয়া উচিত।​
উল্লেখ্য,এ প্রতিবেদক রিকশাচালক তৈয়বআলীকে নিয়ে অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশ করলে সচেতন মহলের নজরে আসে।