ঢাকা ০৬:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বনাথে প্রবাসী চত্বরের জন্য এমপি মোকাব্বির খানের আরো তিন লক্ষ টাকা প্রদান

বিশ্বনাথ থেকে আহমদ আলী হিরণঃ –
সিলেটের প্রবাসী অধ্যূষিত ঐতিহ্যবাহী জনপদ বিশ্বনাথ পৌরসভায় নির্মিত হচ্ছে ‘‘প্রবাসী চত্বর” । সম্ভবত প্রবাসীদের সম্মানে এটি হবে বাংলাদেশের প্রথম কোনো স্থাপত্য। বিশ্বনাথে দেশের প্রথম প্রবাসী চত্বর হচ্ছে এই সংবাদে প্রবাসীরা বেশ আনন্দিত। কিন্তু তাদের শংকা ছিল আসলে বাস্তবে এই প্রজেক্ট কতটুকু এগোবে। “কাজীর গরু কেতাবে আছে, গোয়াল ঘরে নেই” সেই অবস্থা হবে না তো । সকলের শংকা দূর করে ” প্রবাসী চত্বরের জন্য দু দফায় মোট ছয় লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করেন বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের রাজনীতির আলোচিত মুখ বিশ্বনাথ ওসমানীনগর নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য মোকাব্বির খান। এতে এলাকাবাসী বেশ উৎফুল্ল ।
গত কয়েক বছর আগে বিশ্বনাথ – লামাকাজী সড়কের মধ্যবর্তী রামপাশা রোডের তিন রাস্তার মুখে সড়ক ও জনপদ বিভাগ একটি গোল চত্বর নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করে । এতে কয়েক লক্ষ টাকা ব্যয়ও হয়। কিন্তু শুধু ইটের গাঁথুনি দিয়ে চত্বরটিকে গোল আকৃতি করার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে। ইটের গাঁথুন দিয়ে দৃষ্টি নন্দন কিংবা নান্দনিক কিছু করা তো দূরে থাক সামান্যতম প্লাস্টারও করা হয়নি। ফলে আস্তে আস্তে ইটের গাঁথুনি গুলো খসে পরতে থাকে। আর তখন অনেকেই উক্ত ঢত্বরটি ময়লা আবর্জনার ফেলার স্থান হিসেবে বেছে নেয়।
গত ১১ এপ্রিল ২০২১ ইং তারিখে এ আসনের সাংসদ মোকাব্বির খান এই গোল চত্বর উন্নয়নের জন্য তিন লাখ টাকা প্রদান করেন। এর কয়েকদিন পর বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দাস বিশ্বনাথে যোগদান করেন। কাজ পাগল এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারও দৃষ্টিগোচর হয় এই গোলচত্বরটি। তিনি উদ্যোগ নেন এই চত্বরটিকে নান্দনিক রূপ দিতে। আর এজন্য তিনি একটি আর্কেটিক কোম্পানিকে ডিজাইন প্রণনয়নের জন্য দায়িত্ব প্রদান করেন। তারা বিভিন্ন দেশের মুদ্রা খচিত একটি দৃষ্টিনন্দন ও নান্দনিক স্থাপত্যের প্রাথমিক ডিজাইন প্রদান করেন। এতে উক্ত স্থাপত্য নির্মানের জন্য সাংসদ মোকাব্বির খান গত ৮ জুন দ্বিতীয় দফায় আরো তিন লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করেন। আর ইতিমধ্যে কাজও শুরু হয়েছে ।

এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বলেন, সেই আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা থেকে শুরু করে দেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে এমনকি দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে প্রবাসীরা অবদান রেখে আসছেন । বিশ্বনাথে প্রবাসীদের সম্মানে যে গোলচত্বর নির্মাণ করা হচ্ছে তাতে প্রবাসীরা আনন্দিত হলে আমাদের প্রচেষ্টা স্বার্থক হবে ।
এ বিষয়ে বিশ্বনাথ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দাশ এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বলেন , আমি বিশ্বনাথে যোগদানের পর গোলচত্বরের করুন দশা দেখে কাজ করার উদ্যোগ গ্রহণ করি । স্থানীয় সংসদ সদস্য মহোদয় দুদফা মোট ৬ লাখ টাকা প্রদান করায় কাজটি দ্রুত শুরু করা সম্ভব হয়েছে । আমরা আশা করছি এই দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য নির্মাণের পর বিশ্বনাথবাসী গর্বিত হবেন এবং প্রবাসীদের কাছে দেশের সুনাম আরো বৃদ্ধি পাবে ।

ট্যাগস

বিশ্বনাথে প্রবাসী চত্বরের জন্য এমপি মোকাব্বির খানের আরো তিন লক্ষ টাকা প্রদান

আপডেট সময় ০২:৪৪:৪৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১

বিশ্বনাথ থেকে আহমদ আলী হিরণঃ –
সিলেটের প্রবাসী অধ্যূষিত ঐতিহ্যবাহী জনপদ বিশ্বনাথ পৌরসভায় নির্মিত হচ্ছে ‘‘প্রবাসী চত্বর” । সম্ভবত প্রবাসীদের সম্মানে এটি হবে বাংলাদেশের প্রথম কোনো স্থাপত্য। বিশ্বনাথে দেশের প্রথম প্রবাসী চত্বর হচ্ছে এই সংবাদে প্রবাসীরা বেশ আনন্দিত। কিন্তু তাদের শংকা ছিল আসলে বাস্তবে এই প্রজেক্ট কতটুকু এগোবে। “কাজীর গরু কেতাবে আছে, গোয়াল ঘরে নেই” সেই অবস্থা হবে না তো । সকলের শংকা দূর করে ” প্রবাসী চত্বরের জন্য দু দফায় মোট ছয় লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করেন বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের রাজনীতির আলোচিত মুখ বিশ্বনাথ ওসমানীনগর নির্বাচনী এলাকার সংসদ সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য মোকাব্বির খান। এতে এলাকাবাসী বেশ উৎফুল্ল ।
গত কয়েক বছর আগে বিশ্বনাথ – লামাকাজী সড়কের মধ্যবর্তী রামপাশা রোডের তিন রাস্তার মুখে সড়ক ও জনপদ বিভাগ একটি গোল চত্বর নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করে । এতে কয়েক লক্ষ টাকা ব্যয়ও হয়। কিন্তু শুধু ইটের গাঁথুনি দিয়ে চত্বরটিকে গোল আকৃতি করার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে। ইটের গাঁথুন দিয়ে দৃষ্টি নন্দন কিংবা নান্দনিক কিছু করা তো দূরে থাক সামান্যতম প্লাস্টারও করা হয়নি। ফলে আস্তে আস্তে ইটের গাঁথুনি গুলো খসে পরতে থাকে। আর তখন অনেকেই উক্ত ঢত্বরটি ময়লা আবর্জনার ফেলার স্থান হিসেবে বেছে নেয়।
গত ১১ এপ্রিল ২০২১ ইং তারিখে এ আসনের সাংসদ মোকাব্বির খান এই গোল চত্বর উন্নয়নের জন্য তিন লাখ টাকা প্রদান করেন। এর কয়েকদিন পর বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দাস বিশ্বনাথে যোগদান করেন। কাজ পাগল এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারও দৃষ্টিগোচর হয় এই গোলচত্বরটি। তিনি উদ্যোগ নেন এই চত্বরটিকে নান্দনিক রূপ দিতে। আর এজন্য তিনি একটি আর্কেটিক কোম্পানিকে ডিজাইন প্রণনয়নের জন্য দায়িত্ব প্রদান করেন। তারা বিভিন্ন দেশের মুদ্রা খচিত একটি দৃষ্টিনন্দন ও নান্দনিক স্থাপত্যের প্রাথমিক ডিজাইন প্রদান করেন। এতে উক্ত স্থাপত্য নির্মানের জন্য সাংসদ মোকাব্বির খান গত ৮ জুন দ্বিতীয় দফায় আরো তিন লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করেন। আর ইতিমধ্যে কাজও শুরু হয়েছে ।

এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বলেন, সেই আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা থেকে শুরু করে দেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে এমনকি দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে প্রবাসীরা অবদান রেখে আসছেন । বিশ্বনাথে প্রবাসীদের সম্মানে যে গোলচত্বর নির্মাণ করা হচ্ছে তাতে প্রবাসীরা আনন্দিত হলে আমাদের প্রচেষ্টা স্বার্থক হবে ।
এ বিষয়ে বিশ্বনাথ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দাশ এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে বলেন , আমি বিশ্বনাথে যোগদানের পর গোলচত্বরের করুন দশা দেখে কাজ করার উদ্যোগ গ্রহণ করি । স্থানীয় সংসদ সদস্য মহোদয় দুদফা মোট ৬ লাখ টাকা প্রদান করায় কাজটি দ্রুত শুরু করা সম্ভব হয়েছে । আমরা আশা করছি এই দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য নির্মাণের পর বিশ্বনাথবাসী গর্বিত হবেন এবং প্রবাসীদের কাছে দেশের সুনাম আরো বৃদ্ধি পাবে ।