ঢাকা ১১:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এখন থেকে সৌদিআরবের নারীদের একা থাকতে লাগবে না পুরুষের অনুমতি

এখন থেকে সৌদি আরবের যে কোনো নারী একা থাকতে পারবে। একা থাকার জন্য লাগবে না পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি।

দেশটির বিচারিক কর্তৃপক্ষ, এ সংক্রান্ত আইন সংশোধন করেছে। এই সংশোধনীর ফলে এখন থেকে দেশটির অবিবাহিত, তালাকপ্রাপ্ত বা বিধবা নারীরা তাদের পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া একা বসবাস করতে পারবে। খবর গালফ নিউজের।
এর মধ্যে দিয়ে সৌদি আরবের নারীরা এবার আরও স্বাধীনতা পেলো সরকারের কাছ থেকে।
নতুন এই নিয়ম প্রসঙ্গে সৌদি আইনজীবী নায়েফ আল-মানসি জানান, যদি কারও মেয়ে একা থাকতে চায়, সেক্ষেত্রে তার পরিবার এখন থেকে আর মামলা করতে পারবে না। অবিবাহিত, তালাকপ্রাপ্ত বা বিধবা নারীরা এই সুযোগ পাবে। গত বছরের জুলাই মাসে সৌদি লেখিকা মারিয়াম আল-ওতাইবি একা থাকার বিষয়ে এক মামলায় জয়ী হন। তার বাবার অনুমতি ছাড়া একা ঘুরতে চাওয়ার পর তা আদালতে গড়ালে সেই মামলায় তার পক্ষে রায় দেওয়া হয়।
সংশোধনী ওই আইনে বলা হয়, একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারী কোথায় থাকবেন সেটা নির্ধারণ করার অধিকার তার রয়েছে। যদি কোনো নারী কোনো অপরাধ করে কেবল তখনই তার অভিভাবক এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে পারবে। এমনকি যদি কোনও নারীর কারাদণ্ড হয়, তবে সাজার মেয়াদ শেষে তাকে তার অভিভাবকের কাছে ন্যস্ত করার কোনো বিধান থাকছে না।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

এখন থেকে সৌদিআরবের নারীদের একা থাকতে লাগবে না পুরুষের অনুমতি

আপডেট সময় ০৫:৪৪:২৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১২ জুন ২০২১

এখন থেকে সৌদি আরবের যে কোনো নারী একা থাকতে পারবে। একা থাকার জন্য লাগবে না পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি।

দেশটির বিচারিক কর্তৃপক্ষ, এ সংক্রান্ত আইন সংশোধন করেছে। এই সংশোধনীর ফলে এখন থেকে দেশটির অবিবাহিত, তালাকপ্রাপ্ত বা বিধবা নারীরা তাদের পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি ছাড়া একা বসবাস করতে পারবে। খবর গালফ নিউজের।
এর মধ্যে দিয়ে সৌদি আরবের নারীরা এবার আরও স্বাধীনতা পেলো সরকারের কাছ থেকে।
নতুন এই নিয়ম প্রসঙ্গে সৌদি আইনজীবী নায়েফ আল-মানসি জানান, যদি কারও মেয়ে একা থাকতে চায়, সেক্ষেত্রে তার পরিবার এখন থেকে আর মামলা করতে পারবে না। অবিবাহিত, তালাকপ্রাপ্ত বা বিধবা নারীরা এই সুযোগ পাবে। গত বছরের জুলাই মাসে সৌদি লেখিকা মারিয়াম আল-ওতাইবি একা থাকার বিষয়ে এক মামলায় জয়ী হন। তার বাবার অনুমতি ছাড়া একা ঘুরতে চাওয়ার পর তা আদালতে গড়ালে সেই মামলায় তার পক্ষে রায় দেওয়া হয়।
সংশোধনী ওই আইনে বলা হয়, একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারী কোথায় থাকবেন সেটা নির্ধারণ করার অধিকার তার রয়েছে। যদি কোনো নারী কোনো অপরাধ করে কেবল তখনই তার অভিভাবক এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে পারবে। এমনকি যদি কোনও নারীর কারাদণ্ড হয়, তবে সাজার মেয়াদ শেষে তাকে তার অভিভাবকের কাছে ন্যস্ত করার কোনো বিধান থাকছে না।