ঢাকা ০৯:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ! ধর্ষক রানু গ্রেফতার

বিশ্বনাথ থেকে, আহমদ আলী হিরন– সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে জুবায়ের আহমদ রানু (৩৫) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। জুবায়ের উপজেলার জগতপুর গ্রামের চুনু মিয়ার ছেলে। গেল শুক্রবার বিকেল ৫টায় উপজেলা সদর থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে আজ শনিবার থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার দেওকলস ইউনিয়নের কজাকাবাদ গ্রামের এক দিন
মজুরের কলেজ পড়–য়া কন্যা (২০)’র সাথে পাশের্বতী বাড়িতে বসবাসের সুবাদে উত্যক্তের এক পর্যায়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে অভিযুক্ত জুবায়ের। গেল বছরের ১৯ নভেম্বর রাতে মেয়েটির ঘরে প্রবেশ করে অশালিন ও উত্যক্ত কার্যকলাপ করে সে।
এ ঘটনায় বিয়ের জন্যে মেয়ে পরিবার চাপ দিলে জানায় অস্বীকৃতি। পরে এ নিয়ে স্থানীয় মুরব্বিদের উপস্থিতিতে বৈঠকের মাধ্যমে, ‘এমনটি দ্বিতীয় বার আর হবে না মর্মে’ লিখিত মুচলেকা দিলে বিয়ষটি মিমাংসা হয়। পরে গেল ৩০ এপ্রিল মেয়ে ও তার বাবাকে রেখে অন্য সন্তানাদি নিয়ে নানু বাড়ি বেড়াতে যান ভিকটিমের মা। এই সুযোগে ওই দিন রাতে জুবায়ের কৌশলে তার ঘরে প্রবেশ করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে অভিযুক্তের সাথে ফের মেয়েকে বিয়ে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে এলাকার প্রভাবশালীরা বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। ভিকটিমের পরিবারকে অযথাই সপ্তাহখানেক ঘোরায় তারা।
এতেও ছেলে বিয়েতে অমত করায় মেয়ে পরিবার বিষয়টিি থানা পুলিশকে অবহিত করে।
এ বিষয়ে কথা হলে বিশ্বনাথ পুলিশ স্টেশনের এসআই ইমরুল কবির সাংবাদিকদের বলেন, মেয়ের দেয়া অভিযোগপত্রে স্বাক্ষর না থাকায় দ্রুত সময়ের মধ্যে মামলা নেয়া যায়নি। এদিকে ২৪ ঘন্টার উপরে আসামি রাখার বিধান না থাকায় আপাতত তাকে ৫৪ ধারায় কোর্টে পাঠানো হয়েছে। তবে পরবর্তীতে মামলা নেয়া যাবে বলে তিনি জানান।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ! ধর্ষক রানু গ্রেফতার

আপডেট সময় ১১:২৯:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ মে ২০২১

বিশ্বনাথ থেকে, আহমদ আলী হিরন– সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে জুবায়ের আহমদ রানু (৩৫) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। জুবায়ের উপজেলার জগতপুর গ্রামের চুনু মিয়ার ছেলে। গেল শুক্রবার বিকেল ৫টায় উপজেলা সদর থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে আজ শনিবার থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার দেওকলস ইউনিয়নের কজাকাবাদ গ্রামের এক দিন
মজুরের কলেজ পড়–য়া কন্যা (২০)’র সাথে পাশের্বতী বাড়িতে বসবাসের সুবাদে উত্যক্তের এক পর্যায়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে অভিযুক্ত জুবায়ের। গেল বছরের ১৯ নভেম্বর রাতে মেয়েটির ঘরে প্রবেশ করে অশালিন ও উত্যক্ত কার্যকলাপ করে সে।
এ ঘটনায় বিয়ের জন্যে মেয়ে পরিবার চাপ দিলে জানায় অস্বীকৃতি। পরে এ নিয়ে স্থানীয় মুরব্বিদের উপস্থিতিতে বৈঠকের মাধ্যমে, ‘এমনটি দ্বিতীয় বার আর হবে না মর্মে’ লিখিত মুচলেকা দিলে বিয়ষটি মিমাংসা হয়। পরে গেল ৩০ এপ্রিল মেয়ে ও তার বাবাকে রেখে অন্য সন্তানাদি নিয়ে নানু বাড়ি বেড়াতে যান ভিকটিমের মা। এই সুযোগে ওই দিন রাতে জুবায়ের কৌশলে তার ঘরে প্রবেশ করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে অভিযুক্তের সাথে ফের মেয়েকে বিয়ে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে এলাকার প্রভাবশালীরা বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালায়। ভিকটিমের পরিবারকে অযথাই সপ্তাহখানেক ঘোরায় তারা।
এতেও ছেলে বিয়েতে অমত করায় মেয়ে পরিবার বিষয়টিি থানা পুলিশকে অবহিত করে।
এ বিষয়ে কথা হলে বিশ্বনাথ পুলিশ স্টেশনের এসআই ইমরুল কবির সাংবাদিকদের বলেন, মেয়ের দেয়া অভিযোগপত্রে স্বাক্ষর না থাকায় দ্রুত সময়ের মধ্যে মামলা নেয়া যায়নি। এদিকে ২৪ ঘন্টার উপরে আসামি রাখার বিধান না থাকায় আপাতত তাকে ৫৪ ধারায় কোর্টে পাঠানো হয়েছে। তবে পরবর্তীতে মামলা নেয়া যাবে বলে তিনি জানান।