ঢাকা ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মে ২০২৪, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাজ্যের যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনের জন্য সিলেটে প্রস্তুত দুটি হোটেল ও একটি ক্যাম্প।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ যুক্তরাজ্য থেকে আসা সকল যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের জন্য সিলেট নগরীতে কয়েকটি হোটেল প্রস্তুত করা হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী গত শুক্রবার পহেলা জানুয়ারি ২০২১ থেকে যুক্তরাজ্য ফেরত যাত্রীদের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম জানিয়েছন যুক্তরাজ্য থেকে সিলেট আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টানের জন্য নগরীর অভিজাত হোটেল স্টার প্যাসিফিক ও হোটেল হলি গেট চূড়ান্ত করা হয়েছে ইতিমধ্যে। আরো কয়েকটি হোটেল পর্যায়ক্রমে শিগগিরই চূড়ান্ত করা হবে। তিনি জানান, সব মিলিয়ে ৬০০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখার মতো একটি ব্যবস্থা করা হবে আর যুক্তরাজ্য থেকে আসা প্রবাসীরা এসব হোটেলগুলোতে তাদের নিজ খরচে কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন এবং তা বাধ্যতামূলক। গত ২৯ ডিসেম্বর সিলেটের বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগত যাত্রীদের মধ্যে যারা নিজ ব্যয়ে হোটেলে থাকা অপারগতা জানাবেন তাদের জন্য সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন শাহপরাণ মাজার এলাকায় বিআরডিটিআই ক্যাম্পে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে তাদেরকে। প্রতি সপ্তাহের সোম ও বৃহস্পতিবার লন্ডন থেকে সরাসরি বিমানের দুটি ফ্লাইট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসে এই হিসাবে আগামী সোমবার যেসব যাত্রী লন্ডন থেকে ওসমানীতে আসবেন, তাদের নির্ধারিত হোটেলে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের নতুন প্রজাতির একটি ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যুক্তরাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করলেও বাংলাদেশের সঙ্গে তা অব্যাহত রয়েছে। বাংলাদেশের প্রবাসী অধ্যুষিত জেলা হিসেবে সিলেটে গত দুই সপ্তাহে পাঁচ শতাধিক যুক্তরাজ্য প্রবাসী এসেছেন-যাদের সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে।
প্রতি শীত মৌসুমে যুক্তরাজ্য থেকে বিশেষ করে সিলেট প্রবাসীরা দেশে এসে থাকেন সপরিবারে। এবার শীতে যুক্তরাজ্যে নতুন ধরণের করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে অধিক সংখ্যক যাত্রী দেশে ফিরার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায় এবং লন্ডন- সিলেট ফ্লাইট চালু থাকায় সিলেট অঞ্চলের মানুষের মধ্যে নতুন ঐ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় লন্ডন-সিলেট ফ্লাইট বন্ধের দাবি উঠে। কিন্তু প্রবাসী বান্ধব এই সরকার ফ্লাইট বন্ধ না করে যুক্তরাজ্য থেকে ফেরা যাত্রীদের নিজ খরচে বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ জারি করেছেন। সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সূত্রে জানা যায় সর্বশেষ গত ২৪ ডিসেম্বর ২০২ জন, ২৮ ডিসেম্বর ২০২ জন এবং ৩১ ডিসেম্বর ২৩৭ যাত্রী নিয়ে বিমানের ৩টি ফ্লাইট ওসমানীতে আসে। এই তিনদিনে ৬৪১ দেশে এসেছেন। গত ডিসেম্বরে সর্বমোট লন্ডন থেকে আটটি ফ্লাইটে এক হাজার ২২৬ যাত্রী সিলেট এসেছেন। সরকারি এই নির্দেশনা ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হয়েছে। ১ লা জানুয়ারির আগে যারা এসেছেন তাদের বেলায় হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা রয়েছে।
সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার (কোভিড-১৯ ও মিডিয়া সেল) শাম্মা লাবিবা অর্ণব বলেন, নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনার পর যুক্তরাজ্য প্রবাসীদের অনেকেই দেশে আসায় ভাটা পড়েছে। আগামী সোমবারের ফ্লাইটে সিলেটের ৬৯ জন যাত্রী রয়েছেন বলে তারা জানতে পেরেছেন। পরবর্তী ফ্লাইটগুলো যাত্রী আরও কমতে পারে বলেও কর্মকর্তারা ধরানা করছেন। এবং সরকারের এই নতুন নীতিমালা প্রনয়নের পর থেকে অনেক প্রবাসীরা তাদের আগাম বুকিং দেয়া ফ্লাইট গুলো পিছিয়ে নিয়েছেন অথবা বাতিল করে দিয়েছেন বলে জানাগেছে। তবে সরকারের এই সিদ্ধান্তে তাদের কিছুটা অর্থিক ক্ষতি হলেও সরকারের এই সিদ্ধান্ত কে সঠিক সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন অনেক প্রবাসীই। বিমানবন্দর সূত্র জানিয়েছে যুক্তরাজ্য ফেরত সকল যাত্রীদের সিলেট বিমানবন্দর থেকে সরকারের বিটিআরসির বাসে করে যাত্রীদের এই সব হোটেল গুলোতে নেয়া হবে। বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইনের যাত্রীরা যাতে হোটেলের বাইরে না আসেন এবং হোটেলে যাতে তাদের স্বজনরা ও প্রবেশ বা দেখা করতে না পারেন তার জন্য এইসব হোটেলগুলোর সামনে সার্বক্ষণিক পুলিশ পাহারায় থাকবে এবং যুক্তরাজ্যে থেকে আসা সকল যাত্রীদেরই এই সরকারি আইন মানতে হবে এবং তা মানার জন্য কর্তৃপক্ষ আহবান জানিয়েছেন।

ট্যাগস

যুক্তরাজ্যের যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনের জন্য সিলেটে প্রস্তুত দুটি হোটেল ও একটি ক্যাম্প।

আপডেট সময় ১০:৫৭:২৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ জানুয়ারী ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ যুক্তরাজ্য থেকে আসা সকল যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের জন্য সিলেট নগরীতে কয়েকটি হোটেল প্রস্তুত করা হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী গত শুক্রবার পহেলা জানুয়ারি ২০২১ থেকে যুক্তরাজ্য ফেরত যাত্রীদের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম জানিয়েছন যুক্তরাজ্য থেকে সিলেট আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টানের জন্য নগরীর অভিজাত হোটেল স্টার প্যাসিফিক ও হোটেল হলি গেট চূড়ান্ত করা হয়েছে ইতিমধ্যে। আরো কয়েকটি হোটেল পর্যায়ক্রমে শিগগিরই চূড়ান্ত করা হবে। তিনি জানান, সব মিলিয়ে ৬০০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখার মতো একটি ব্যবস্থা করা হবে আর যুক্তরাজ্য থেকে আসা প্রবাসীরা এসব হোটেলগুলোতে তাদের নিজ খরচে কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন এবং তা বাধ্যতামূলক। গত ২৯ ডিসেম্বর সিলেটের বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগত যাত্রীদের মধ্যে যারা নিজ ব্যয়ে হোটেলে থাকা অপারগতা জানাবেন তাদের জন্য সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন শাহপরাণ মাজার এলাকায় বিআরডিটিআই ক্যাম্পে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে তাদেরকে। প্রতি সপ্তাহের সোম ও বৃহস্পতিবার লন্ডন থেকে সরাসরি বিমানের দুটি ফ্লাইট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসে এই হিসাবে আগামী সোমবার যেসব যাত্রী লন্ডন থেকে ওসমানীতে আসবেন, তাদের নির্ধারিত হোটেলে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের নতুন প্রজাতির একটি ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যুক্তরাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করলেও বাংলাদেশের সঙ্গে তা অব্যাহত রয়েছে। বাংলাদেশের প্রবাসী অধ্যুষিত জেলা হিসেবে সিলেটে গত দুই সপ্তাহে পাঁচ শতাধিক যুক্তরাজ্য প্রবাসী এসেছেন-যাদের সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে।
প্রতি শীত মৌসুমে যুক্তরাজ্য থেকে বিশেষ করে সিলেট প্রবাসীরা দেশে এসে থাকেন সপরিবারে। এবার শীতে যুক্তরাজ্যে নতুন ধরণের করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে অধিক সংখ্যক যাত্রী দেশে ফিরার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায় এবং লন্ডন- সিলেট ফ্লাইট চালু থাকায় সিলেট অঞ্চলের মানুষের মধ্যে নতুন ঐ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় লন্ডন-সিলেট ফ্লাইট বন্ধের দাবি উঠে। কিন্তু প্রবাসী বান্ধব এই সরকার ফ্লাইট বন্ধ না করে যুক্তরাজ্য থেকে ফেরা যাত্রীদের নিজ খরচে বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ জারি করেছেন। সিলেটের ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সূত্রে জানা যায় সর্বশেষ গত ২৪ ডিসেম্বর ২০২ জন, ২৮ ডিসেম্বর ২০২ জন এবং ৩১ ডিসেম্বর ২৩৭ যাত্রী নিয়ে বিমানের ৩টি ফ্লাইট ওসমানীতে আসে। এই তিনদিনে ৬৪১ দেশে এসেছেন। গত ডিসেম্বরে সর্বমোট লন্ডন থেকে আটটি ফ্লাইটে এক হাজার ২২৬ যাত্রী সিলেট এসেছেন। সরকারি এই নির্দেশনা ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হয়েছে। ১ লা জানুয়ারির আগে যারা এসেছেন তাদের বেলায় হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা রয়েছে।
সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার (কোভিড-১৯ ও মিডিয়া সেল) শাম্মা লাবিবা অর্ণব বলেন, নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনার পর যুক্তরাজ্য প্রবাসীদের অনেকেই দেশে আসায় ভাটা পড়েছে। আগামী সোমবারের ফ্লাইটে সিলেটের ৬৯ জন যাত্রী রয়েছেন বলে তারা জানতে পেরেছেন। পরবর্তী ফ্লাইটগুলো যাত্রী আরও কমতে পারে বলেও কর্মকর্তারা ধরানা করছেন। এবং সরকারের এই নতুন নীতিমালা প্রনয়নের পর থেকে অনেক প্রবাসীরা তাদের আগাম বুকিং দেয়া ফ্লাইট গুলো পিছিয়ে নিয়েছেন অথবা বাতিল করে দিয়েছেন বলে জানাগেছে। তবে সরকারের এই সিদ্ধান্তে তাদের কিছুটা অর্থিক ক্ষতি হলেও সরকারের এই সিদ্ধান্ত কে সঠিক সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন অনেক প্রবাসীই। বিমানবন্দর সূত্র জানিয়েছে যুক্তরাজ্য ফেরত সকল যাত্রীদের সিলেট বিমানবন্দর থেকে সরকারের বিটিআরসির বাসে করে যাত্রীদের এই সব হোটেল গুলোতে নেয়া হবে। বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইনের যাত্রীরা যাতে হোটেলের বাইরে না আসেন এবং হোটেলে যাতে তাদের স্বজনরা ও প্রবেশ বা দেখা করতে না পারেন তার জন্য এইসব হোটেলগুলোর সামনে সার্বক্ষণিক পুলিশ পাহারায় থাকবে এবং যুক্তরাজ্যে থেকে আসা সকল যাত্রীদেরই এই সরকারি আইন মানতে হবে এবং তা মানার জন্য কর্তৃপক্ষ আহবান জানিয়েছেন।