ঢাকা ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ মে ২০২৪, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাঁজা সহ কাঠমিস্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ

বিশ্বনাথ সংবাদদাতাঃ সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের পুষণী গুচ্ছগ্রাম থেকে ১৬ পুরিয়া গাঁজা ও ৬টি লাল রঙ্গের ট্যাবলেটসহ মশাহিদ আলী (৪০) নামের এক কাঠমিস্ত্রিকে আটক করেছে থানা পুলিশ। শনিবার (১২ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে তার বসতঘর থেকে তাকে আটক করা হয়। মশাহিদ ওই গুচ্ছগ্রামের ১৫ নাম্বার ঘরের বাসিন্দা। তার পিতার নাম মৃত ছমেদ আলী। তবে, পুলিশ বলছে বিষয়টি রহস্যজনক।
স্থানীয় ইউপি সদস্য সিরাজ উদ্দিন আহমদ জানান, বেশ কিছুদিন ধরে অনেকেই অভিযোগ করছিলেন, মশাহিদ গাঁজা সেবন ও বিক্রয় করে আসছেন। স্থানীয়দের অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে শনিবার রাতে তার বসতঘরে যাই। তার সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে গাঁজা আছে কিনা খোঁজ করতে গিয়ে তার রুমে প্রবেশের দরজা লাগোয়া একটি ছোট মাচার উপরে গাঁজা ও লাল রঙ্গের ট্যাবলেট পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় পাই। সাথে সাথে থানা পুলিশকে খবর দেয়া হয়।
গাঁজা বিক্রি বা সেবনের সাথে জড়িত নই উল্লেখ করে অভিযুক্ত মশাহিদ আলী জানান, আমাকে ফাঁসানোর জন্যে গাঁজা ও ট্যাবলেট কেউ আমার রুমের বাইরে রেখে গিয়েছে।
গাঁজাসহ মশাহিদকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন ঘটনাস্থলে যাওয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সঞ্জয় লাল। তিনি জানান, লাল রঙ্গের ৬টি ট্যাবলেট ইয়াবা বলে মনে হয়নি। তবুও পুলিশ যাচাই করে দেখছে।
থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মুসা জানান, বিষয়টি রহস্যজনক। থানা পুলিশ গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেবে।

ট্যাগস

গাঁজা সহ কাঠমিস্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ

আপডেট সময় ০৮:৩৩:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০২০

বিশ্বনাথ সংবাদদাতাঃ সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের পুষণী গুচ্ছগ্রাম থেকে ১৬ পুরিয়া গাঁজা ও ৬টি লাল রঙ্গের ট্যাবলেটসহ মশাহিদ আলী (৪০) নামের এক কাঠমিস্ত্রিকে আটক করেছে থানা পুলিশ। শনিবার (১২ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে তার বসতঘর থেকে তাকে আটক করা হয়। মশাহিদ ওই গুচ্ছগ্রামের ১৫ নাম্বার ঘরের বাসিন্দা। তার পিতার নাম মৃত ছমেদ আলী। তবে, পুলিশ বলছে বিষয়টি রহস্যজনক।
স্থানীয় ইউপি সদস্য সিরাজ উদ্দিন আহমদ জানান, বেশ কিছুদিন ধরে অনেকেই অভিযোগ করছিলেন, মশাহিদ গাঁজা সেবন ও বিক্রয় করে আসছেন। স্থানীয়দের অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে শনিবার রাতে তার বসতঘরে যাই। তার সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে গাঁজা আছে কিনা খোঁজ করতে গিয়ে তার রুমে প্রবেশের দরজা লাগোয়া একটি ছোট মাচার উপরে গাঁজা ও লাল রঙ্গের ট্যাবলেট পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় পাই। সাথে সাথে থানা পুলিশকে খবর দেয়া হয়।
গাঁজা বিক্রি বা সেবনের সাথে জড়িত নই উল্লেখ করে অভিযুক্ত মশাহিদ আলী জানান, আমাকে ফাঁসানোর জন্যে গাঁজা ও ট্যাবলেট কেউ আমার রুমের বাইরে রেখে গিয়েছে।
গাঁজাসহ মশাহিদকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন ঘটনাস্থলে যাওয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সঞ্জয় লাল। তিনি জানান, লাল রঙ্গের ৬টি ট্যাবলেট ইয়াবা বলে মনে হয়নি। তবুও পুলিশ যাচাই করে দেখছে।
থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মুসা জানান, বিষয়টি রহস্যজনক। থানা পুলিশ গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেবে।