ঢাকা ১১:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বনাথে পর্নোগ্রাফি মামলায় দুই সহোদর গ্রেফতার!

বিশ্বনাথ প্রতিনিধিঃ–  ডির্ভোসের পর আমেরিকা প্রবাসী স্ত্রীর ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করায় পর্ণোগ্রাফি মামলায় স্বামী ও তার বড় ভাইকে গ্রেফতার করেছে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ।  তারা হচ্ছে উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের চরচন্ডি গ্রামের হাজী ইদ্রিছ আলীর পুত্র নুরুজ্জামান মিনার (৩২) ও তার বড় ভাই আনহার আলী (৪২)। শনিবার বিশ্বনাথ পৌরশহরের বিভিন্ন স্থান থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। শনিবার গ্রেফতারকৃত দুই আসামিসহ ৫জনের বিরুদ্ধে থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নের মশুলা (মজলিশ ভোগশাইল) গ্রামের আলতাব আলীর পুত্র আলকাছ আলী (৪২)। বাদি মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, ২০১৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর প্রেমের সম্পর্কে আসামি নুরুজ্জামান মিনারের সাথে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে তার আমেরিকা প্রবাসী বোনের বিয়ে হয়। পরবর্তিতে উভয় পরিবারের লোকজন তাদের বিয়ে মেনে নিয়ে ১৮সালের ১১ এপ্রিল সামাজিকভাবে ২৫ লাখ টাকা কাবিননামার মাধ্যমে পুনরায় আনুষ্টানিকতা করা হয়। অবশেষে একই সালের ১৫ মে তার বোন আমেরিকা চলে যান। এর পর থেকে তার বোনকে বিভিন্ন সময় টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করে স্বামী নুরুজ্জামান মিনার। দেশে থাকতেও টাকার জন্য অশুভ আচরণ করতো স্বামী। এর পূর্বে কৌশলে মোবাইল ফোনে স্বামী-স্ত্রীর দাম্পত্য জীবনের বিভিন্ন ধরণের ভিডিও আর ছবি ধারণ করে রাখে স্বামী নুরুজ্জামান মিনার। টাকা না দেয়ায় এসকল গোপন ছবি আর ভিডিও আন্টারনেটসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। আর এই হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে ১৯ সালের ৬ডিসেম্বর তার আমেরিকা প্রবাসী বোন স্বামী নুরুজ্জামান মিনারকে ডিভোর্স দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী ওই ছবি আর ভিডিও গুলো বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ফেইক ফেসবুক আইডির মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। এঘটনায় আলকাছ আলী বাদি হয়ে থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর তারা দুই সহোদরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। রোববার সকালে আনহার আলী-কে কোর্টে প্রেরণ করা হলেও নুরুজ্জামান মিনারকে অসুস্থ্যতার জন্য সিলেট ওসমানী হাসপতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই নুর হোসেন সাংবাদিকদের জানান।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

বিশ্বনাথে পর্নোগ্রাফি মামলায় দুই সহোদর গ্রেফতার!

আপডেট সময় ০৮:৫৫:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

বিশ্বনাথ প্রতিনিধিঃ–  ডির্ভোসের পর আমেরিকা প্রবাসী স্ত্রীর ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করায় পর্ণোগ্রাফি মামলায় স্বামী ও তার বড় ভাইকে গ্রেফতার করেছে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ।  তারা হচ্ছে উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের চরচন্ডি গ্রামের হাজী ইদ্রিছ আলীর পুত্র নুরুজ্জামান মিনার (৩২) ও তার বড় ভাই আনহার আলী (৪২)। শনিবার বিশ্বনাথ পৌরশহরের বিভিন্ন স্থান থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। শনিবার গ্রেফতারকৃত দুই আসামিসহ ৫জনের বিরুদ্ধে থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নের মশুলা (মজলিশ ভোগশাইল) গ্রামের আলতাব আলীর পুত্র আলকাছ আলী (৪২)। বাদি মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, ২০১৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর প্রেমের সম্পর্কে আসামি নুরুজ্জামান মিনারের সাথে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে তার আমেরিকা প্রবাসী বোনের বিয়ে হয়। পরবর্তিতে উভয় পরিবারের লোকজন তাদের বিয়ে মেনে নিয়ে ১৮সালের ১১ এপ্রিল সামাজিকভাবে ২৫ লাখ টাকা কাবিননামার মাধ্যমে পুনরায় আনুষ্টানিকতা করা হয়। অবশেষে একই সালের ১৫ মে তার বোন আমেরিকা চলে যান। এর পর থেকে তার বোনকে বিভিন্ন সময় টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করে স্বামী নুরুজ্জামান মিনার। দেশে থাকতেও টাকার জন্য অশুভ আচরণ করতো স্বামী। এর পূর্বে কৌশলে মোবাইল ফোনে স্বামী-স্ত্রীর দাম্পত্য জীবনের বিভিন্ন ধরণের ভিডিও আর ছবি ধারণ করে রাখে স্বামী নুরুজ্জামান মিনার। টাকা না দেয়ায় এসকল গোপন ছবি আর ভিডিও আন্টারনেটসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। আর এই হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে ১৯ সালের ৬ডিসেম্বর তার আমেরিকা প্রবাসী বোন স্বামী নুরুজ্জামান মিনারকে ডিভোর্স দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী ওই ছবি আর ভিডিও গুলো বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ফেইক ফেসবুক আইডির মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। এঘটনায় আলকাছ আলী বাদি হয়ে থানায় ওই মামলাটি দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর তারা দুই সহোদরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। রোববার সকালে আনহার আলী-কে কোর্টে প্রেরণ করা হলেও নুরুজ্জামান মিনারকে অসুস্থ্যতার জন্য সিলেট ওসমানী হাসপতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই নুর হোসেন সাংবাদিকদের জানান।