ঢাকা ১০:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরিচর্যার অভাবে মারা যাচ্ছে জাককানইবি ক্যাম্পাসে রোপন করা বৃক্ষের চারাগুলো।

মোঃ আরাফাত রহমানঃ  জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দফায় দফায় পালিত হচ্ছে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচী । পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে ইতোমধ্যেই রোপণ করা হয়ে প্রায় কয়েকশত বৃক্ষ । কিন্তু সুষ্ঠু পরিচর্যার অভাবে বেশিরভাগ বৃক্ষ এখন মৃতপ্রায় ।
​ শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী ও রাজনৈতিক সংগঠন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক উদ্যোগে রোপণ করা হয় এসব বৃক্ষ । কিন্তু গাছ লাগানো পর্যন্তই সকলের দায় শেষ । তারপর আর কেউ এগুলোর কোন পরিচর্যা করে না । গতকাল সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা গেছে , হাতে গোনা কয়েকটি চারা ব্যতিত বাকি সবগুলোরই বেহাল দশা । চারাগাছ গুলোতে খুঁটি না দেয়া , নিয়মিত পানি না দেয়া ও আশপাশের এলাকা বাসীর গবাদি পশুর তান্ডবে মারা যাচ্ছে বৃক্ষের চারা গুলো ।​
​ গতকাল ক্যাম্পাসের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে একই সাথে প্রায় ২০-২৫টি গরু -ছাগল চড়তে দেখা গেছে । বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশে কোন সীমানা প্রাচীর না থাকায় , কোন রকম বাঁধা ছাড়াই এই গবাদি পশুগুলো ক্যাম্পাসের ভেতরে ঢুকে পড়ে এবং গাছের চারা গুলো খেয়ে নষ্ট করে ফেলে ও যেখানে সেখানে মল ত্যাগ করে পরিবেশ দূষণ করে । বারবার আশপাশের লোকজনদের ক্যাম্পাসে গবাদি পশু চড়াতে​ নিষেধ করা সত্ত্বেও তারা কোন বাঁধাই মানছে না । বিষয়টি নিয়ে নিরাপত্তা প্রহরিদের প্রতিনিয়ত স্থানীয় লোকজনের সাথে বাদানুবাদ হয় । মাঝে মাঝে এলাকাবাসী তাদের মারধরের হুমকি পর্যন্ত দেয় ।​
করোনা কালীন মহামারীর কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ক্যাম্পাস । বন্ধ থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ‘মালি’রা কাজ করতে আসে না । ,তাই বৃক্ষের চারাগুলোর সুষ্ঠু পরিচর্যার করা সম্ভব হচ্ছে না ।​ এ বিষয়ে কনজ্যুমার ইউথ বাংলাদেশ , জাককানইবি এর সভাপতি বলেন , ‘ বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা ‘মালি’ পদে চাকরি করেন তাদের বাড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশেই ।লকডাউনের কারনে তারা ঘরে বসে বসে বেতন পাচ্ছে । বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত , তাদেরকে এই চারাগাছ গুলো পরিচর্যার দায়িত্ব দেয়া ।’
ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্ট ফোরাম -জাককানইবি এর ধর্মবিষয়ক সম্পাদক বলেন ,’বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর আশপাশের ও স্থানীয় লোকদের গবাদি পশু চরানো বন্ধ করা উচিত । এ ব্যপারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে যথার্থ পদক্ষেপ নিতে হবে ।’
​ আজ রবিবার জাককানইবি সাংবাদিক সমিতির উদ্যোগে গাছগুলো পরিচর্যার কাজ করা হয় ।এতে উপস্থিত ছিলেন জাককানইবি সাংবাদিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মোঃ রাশিদুজ্জামান রনি, আদিব রহমান ও অন্যান্য সদস্যবৃন্দ ।
উল্লেখ্য , বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন ভবন তৈরীর জন্য কেটে ফেলা হচ্ছে অসংখ্য গাছ । তাই ক্যাম্পাসের প্রাকৃতিক পরিবেশ ধরে রাখতে এই চারা গুলোর পরিচর্যা করা প্রয়োজন ।
ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

পরিচর্যার অভাবে মারা যাচ্ছে জাককানইবি ক্যাম্পাসে রোপন করা বৃক্ষের চারাগুলো।

আপডেট সময় ০৪:৫৩:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ জুলাই ২০২০
মোঃ আরাফাত রহমানঃ  জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দফায় দফায় পালিত হচ্ছে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচী । পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে ইতোমধ্যেই রোপণ করা হয়ে প্রায় কয়েকশত বৃক্ষ । কিন্তু সুষ্ঠু পরিচর্যার অভাবে বেশিরভাগ বৃক্ষ এখন মৃতপ্রায় ।
​ শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী ও রাজনৈতিক সংগঠন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনিক উদ্যোগে রোপণ করা হয় এসব বৃক্ষ । কিন্তু গাছ লাগানো পর্যন্তই সকলের দায় শেষ । তারপর আর কেউ এগুলোর কোন পরিচর্যা করে না । গতকাল সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা গেছে , হাতে গোনা কয়েকটি চারা ব্যতিত বাকি সবগুলোরই বেহাল দশা । চারাগাছ গুলোতে খুঁটি না দেয়া , নিয়মিত পানি না দেয়া ও আশপাশের এলাকা বাসীর গবাদি পশুর তান্ডবে মারা যাচ্ছে বৃক্ষের চারা গুলো ।​
​ গতকাল ক্যাম্পাসের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে একই সাথে প্রায় ২০-২৫টি গরু -ছাগল চড়তে দেখা গেছে । বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশে কোন সীমানা প্রাচীর না থাকায় , কোন রকম বাঁধা ছাড়াই এই গবাদি পশুগুলো ক্যাম্পাসের ভেতরে ঢুকে পড়ে এবং গাছের চারা গুলো খেয়ে নষ্ট করে ফেলে ও যেখানে সেখানে মল ত্যাগ করে পরিবেশ দূষণ করে । বারবার আশপাশের লোকজনদের ক্যাম্পাসে গবাদি পশু চড়াতে​ নিষেধ করা সত্ত্বেও তারা কোন বাঁধাই মানছে না । বিষয়টি নিয়ে নিরাপত্তা প্রহরিদের প্রতিনিয়ত স্থানীয় লোকজনের সাথে বাদানুবাদ হয় । মাঝে মাঝে এলাকাবাসী তাদের মারধরের হুমকি পর্যন্ত দেয় ।​
করোনা কালীন মহামারীর কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ ক্যাম্পাস । বন্ধ থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ‘মালি’রা কাজ করতে আসে না । ,তাই বৃক্ষের চারাগুলোর সুষ্ঠু পরিচর্যার করা সম্ভব হচ্ছে না ।​ এ বিষয়ে কনজ্যুমার ইউথ বাংলাদেশ , জাককানইবি এর সভাপতি বলেন , ‘ বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা ‘মালি’ পদে চাকরি করেন তাদের বাড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশেই ।লকডাউনের কারনে তারা ঘরে বসে বসে বেতন পাচ্ছে । বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত , তাদেরকে এই চারাগাছ গুলো পরিচর্যার দায়িত্ব দেয়া ।’
ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্ট ফোরাম -জাককানইবি এর ধর্মবিষয়ক সম্পাদক বলেন ,’বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর আশপাশের ও স্থানীয় লোকদের গবাদি পশু চরানো বন্ধ করা উচিত । এ ব্যপারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে যথার্থ পদক্ষেপ নিতে হবে ।’
​ আজ রবিবার জাককানইবি সাংবাদিক সমিতির উদ্যোগে গাছগুলো পরিচর্যার কাজ করা হয় ।এতে উপস্থিত ছিলেন জাককানইবি সাংবাদিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মোঃ রাশিদুজ্জামান রনি, আদিব রহমান ও অন্যান্য সদস্যবৃন্দ ।
উল্লেখ্য , বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন ভবন তৈরীর জন্য কেটে ফেলা হচ্ছে অসংখ্য গাছ । তাই ক্যাম্পাসের প্রাকৃতিক পরিবেশ ধরে রাখতে এই চারা গুলোর পরিচর্যা করা প্রয়োজন ।