ঢাকা ০৭:০৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারনে অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে স্বর্ন বাজারে।

ডেস্ক নিউজঃ বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে বিশ্বের অর্থনৈতিক অবস্থা নড়বড়ে হয়ে পড়েছে। আর তাই অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে  স্বর্ন বাজারে।
বিশ্ব স্বর্নবাজারে গতকাল (২২ জুলাই) প্রতি ১ আউন্স (২.৪৩০৫ ভরি) স্বর্ণের দাম ১.৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ১,৮৬৫.৮১ ডলার, যা প্রায় গত নয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থায় পৌছেছে। করোনাভাইরাস মহামারীতে ইউএস ডলারের মূল্য পতনে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামের এই আকাশচুম্বী গতি। পাশ্ববর্তী দেশ যেখানে স্বর্নের সবচেয়ে বেশি চাহিদা সেইভারতের পুঁজিবাজারে বুধবার দিনের শুরুতেই ২২ ক্যারেট মানের প্রতি ১০ গ্রাম (১ ভরির সামান্য কম) স্বর্ণের দাম পৌঁছায় ৪৯ হাজার ৯৯৬ রুপিতে (৬৭০.৩২ ডলার), যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা।  স্বর্নের এই দামের বৃদ্ধি গত বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালের দাম থেকে ২৮ শতাংশ বেশি।  রুপার দামও আন্তর্জাতিক বাজারে ২০১৩ সালের পর থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌছেছে। প্রতি আউন্স রুপার দাম উঠেছে ২২.৮৩৬৬ ডলার। ভারতেও রুপার দাম বেড়েছে। দেশটির পুঁজি বাজারে বুধবার একপর্যায়ে প্রতি কেজির রুপার দাম পৌঁছে ৬০ হাজার ৭৮২ রুপি, যা বিগত সাত বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ দামে পৌছেছে। বিশ্বে যখন কোনো কারণে বা দূর্যোগে অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ বা মন্দা অথবা রাজনৈতিক অস্থিরতায় ডলারের মান যখন দুর্বল হয়ে পড়ে টিক তখনই স্বর্ণসহ নির্ধারিত বিভিন্ন ধাতুতে বিনিয়োগে নিরাপদ বোধ করেন এর সাথে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারীরা। যার ফলে এসব ধাতুর দাম বেড়ে যায়। অপরদিকে ইউ এস ডলার যখন শক্ত অবস্থানে থাকে তখন স্বর্ণসহ মূল্যবান ধাতুগুলোর দাম কমে যায়। আর এই সুযোগটিই কাজে লাগান এর সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

ট্যাগস

অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারনে অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে স্বর্ন বাজারে।

আপডেট সময় ০৯:১৪:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই ২০২০

ডেস্ক নিউজঃ বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে বিশ্বের অর্থনৈতিক অবস্থা নড়বড়ে হয়ে পড়েছে। আর তাই অস্বাভাবিকভাবে দাম বেড়েছে  স্বর্ন বাজারে।
বিশ্ব স্বর্নবাজারে গতকাল (২২ জুলাই) প্রতি ১ আউন্স (২.৪৩০৫ ভরি) স্বর্ণের দাম ১.৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ১,৮৬৫.৮১ ডলার, যা প্রায় গত নয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থায় পৌছেছে। করোনাভাইরাস মহামারীতে ইউএস ডলারের মূল্য পতনে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামের এই আকাশচুম্বী গতি। পাশ্ববর্তী দেশ যেখানে স্বর্নের সবচেয়ে বেশি চাহিদা সেইভারতের পুঁজিবাজারে বুধবার দিনের শুরুতেই ২২ ক্যারেট মানের প্রতি ১০ গ্রাম (১ ভরির সামান্য কম) স্বর্ণের দাম পৌঁছায় ৪৯ হাজার ৯৯৬ রুপিতে (৬৭০.৩২ ডলার), যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা।  স্বর্নের এই দামের বৃদ্ধি গত বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালের দাম থেকে ২৮ শতাংশ বেশি।  রুপার দামও আন্তর্জাতিক বাজারে ২০১৩ সালের পর থেকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌছেছে। প্রতি আউন্স রুপার দাম উঠেছে ২২.৮৩৬৬ ডলার। ভারতেও রুপার দাম বেড়েছে। দেশটির পুঁজি বাজারে বুধবার একপর্যায়ে প্রতি কেজির রুপার দাম পৌঁছে ৬০ হাজার ৭৮২ রুপি, যা বিগত সাত বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ দামে পৌছেছে। বিশ্বে যখন কোনো কারণে বা দূর্যোগে অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ বা মন্দা অথবা রাজনৈতিক অস্থিরতায় ডলারের মান যখন দুর্বল হয়ে পড়ে টিক তখনই স্বর্ণসহ নির্ধারিত বিভিন্ন ধাতুতে বিনিয়োগে নিরাপদ বোধ করেন এর সাথে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারীরা। যার ফলে এসব ধাতুর দাম বেড়ে যায়। অপরদিকে ইউ এস ডলার যখন শক্ত অবস্থানে থাকে তখন স্বর্ণসহ মূল্যবান ধাতুগুলোর দাম কমে যায়। আর এই সুযোগটিই কাজে লাগান এর সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।