ঢাকা ০৭:০৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যুবলীগের সাঃ সম্পাদক মইনুল হোসেন খান নিখিলের জন্মদিনে ফ্রান্স যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান মিজানের শুভেচ্ছা।

আলহাজ্ব মো: মাইনুল হোসেন খান নিখিল পিতা: মরহুম মোফাজ্জল হোসেন খান, মাতা: মরহুমা হামিদা বেগম এর সাত কন্যা ও পাচঁ পূত্রের মধ্যে তৃতীয়। ২৭ জুন হরিনা, নিশ্চিন্তপুর মতলব-উত্তর চাঁদপুরের সম্রান্ত খান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

জনাব, নিখিল ১৯৭৯ সালে নিশ্চিন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস এস সি পাশ করেন পরবর্তিতে তিনি বগুড়া’র শাহ সুলতান ডিগ্রী কলেজ থেকে বি এস এস ডিগ্রী অর্জন করেন । ১৯৯৭ সালে ঢাকার নবাবগঞ্জের সম্রান্ত মুসলিম পরিবারের কন্যা মমতাজ বেগমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দুই সন্তানের জনক। তিনি ৮০ দশকে লালবাগ থানা ছাত্রলীগের সক্রিয় সদস্য ছিলেন, পরবর্তীতে ১৯৯১ সালে অবিভক্ত ঢাকা মহানগর যুবলীগের সাবেক (৯ নং ওয়ার্ড) বর্তমান ১৩ নং ওয়ার্ড যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক নির্বাচিত হন।

১৯৯৩ সালে সম্মেলনের মধ্য দিয়ে ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর এর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে সাধারণ সম্পাদক ও ২০১২ সালে সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৭ম কংগ্রেসের মধ্য দিয়ে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে জেল জুলুম হুলিয়া সহ বহুবার কারা নির্যাতনের শিকার হন।
২০০৪ সালে তৎকালী ঢাকা জোনের ডিসি কোহিনুর পল্লবী থেকে উনাকে আটক করে কারাগারে পাঠান। দুইদিন পর মুক্তি পেয়ে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা’র সাথে দেখা করেন। তিনি বহুবার পুলিশের নির্যাতনের শিকার হন, এখনো শরীরের আঘাতের চিহৃ নিয়ে রাজনীতির মাঠে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। ২০১০ সালে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র সাথে জাতিসংঘের অধিবেশন যোগ দেন, তিনি সাংগঠনিক কাজে ইউরোপ, আমেরিকা, কাতার, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, মালেশিয়া, জার্মানীতে যান, বেলজিয়াম আওয়ামীলীগ উনাকে গোল্ডেন মেডেল উপহার দেন, বর্তমানে বৈশ্বিক করোনা মহামারিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানবতার ফেরিওয়ার ভূমিকায় তিনিকে দেখা যায় ঢাকার প্রত্যান্ত অন্চলে সাধারণ অসহায় মানুষের পাশে। যা মানবতার যুবলীগ নামে দেশ বিদেশে প্রশংসিত হয়।

২০১১ সালে পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে উমরাহ হজ্ব পালন করেন, পরবর্তিতে তিনি বহুবার পবিত্র হজ্ব পালন করেন। আলহাজ্ব মো: মাইনুল হোসেন খান নিখিল ব্যাক্তি জিবনে একজন সদালাপী , নম্র, ধার্মিক , সমাজ সেবক , ব্যবসায়ী হিসেবে তিনি ব্যাপক সফলতা লাভ করেছেন।

ফ্রান্স যুবলীগের একজন কর্মী হিসেবে উনারমত নেতার সান্নিধ্য লাভ করেছি। আমি উনার জন্মদিনে শুভেচ্ছা সহ দোয়া ও সুস্বাস্থ্য কামনা করি। এবং আমি বিশ্বাস করি বর্তমান নেতৃত্ব মূছে দেবে অতিথের সকল গ্লানী। এগিয়ে যাবে মানবতার যুবলীগ।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

মিজানুর রহমান মিজান- ফ্রান্স যুবলীগ।

ট্যাগস
জনপ্রিয় সংবাদ

যুবলীগের সাঃ সম্পাদক মইনুল হোসেন খান নিখিলের জন্মদিনে ফ্রান্স যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান মিজানের শুভেচ্ছা।

আপডেট সময় ০৫:১৪:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ জুন ২০২০

আলহাজ্ব মো: মাইনুল হোসেন খান নিখিল পিতা: মরহুম মোফাজ্জল হোসেন খান, মাতা: মরহুমা হামিদা বেগম এর সাত কন্যা ও পাচঁ পূত্রের মধ্যে তৃতীয়। ২৭ জুন হরিনা, নিশ্চিন্তপুর মতলব-উত্তর চাঁদপুরের সম্রান্ত খান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

জনাব, নিখিল ১৯৭৯ সালে নিশ্চিন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস এস সি পাশ করেন পরবর্তিতে তিনি বগুড়া’র শাহ সুলতান ডিগ্রী কলেজ থেকে বি এস এস ডিগ্রী অর্জন করেন । ১৯৯৭ সালে ঢাকার নবাবগঞ্জের সম্রান্ত মুসলিম পরিবারের কন্যা মমতাজ বেগমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দুই সন্তানের জনক। তিনি ৮০ দশকে লালবাগ থানা ছাত্রলীগের সক্রিয় সদস্য ছিলেন, পরবর্তীতে ১৯৯১ সালে অবিভক্ত ঢাকা মহানগর যুবলীগের সাবেক (৯ নং ওয়ার্ড) বর্তমান ১৩ নং ওয়ার্ড যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক নির্বাচিত হন।

১৯৯৩ সালে সম্মেলনের মধ্য দিয়ে ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তর এর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে সাধারণ সম্পাদক ও ২০১২ সালে সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৭ম কংগ্রেসের মধ্য দিয়ে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে জেল জুলুম হুলিয়া সহ বহুবার কারা নির্যাতনের শিকার হন।
২০০৪ সালে তৎকালী ঢাকা জোনের ডিসি কোহিনুর পল্লবী থেকে উনাকে আটক করে কারাগারে পাঠান। দুইদিন পর মুক্তি পেয়ে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা’র সাথে দেখা করেন। তিনি বহুবার পুলিশের নির্যাতনের শিকার হন, এখনো শরীরের আঘাতের চিহৃ নিয়ে রাজনীতির মাঠে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। ২০১০ সালে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র সাথে জাতিসংঘের অধিবেশন যোগ দেন, তিনি সাংগঠনিক কাজে ইউরোপ, আমেরিকা, কাতার, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, মালেশিয়া, জার্মানীতে যান, বেলজিয়াম আওয়ামীলীগ উনাকে গোল্ডেন মেডেল উপহার দেন, বর্তমানে বৈশ্বিক করোনা মহামারিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানবতার ফেরিওয়ার ভূমিকায় তিনিকে দেখা যায় ঢাকার প্রত্যান্ত অন্চলে সাধারণ অসহায় মানুষের পাশে। যা মানবতার যুবলীগ নামে দেশ বিদেশে প্রশংসিত হয়।

২০১১ সালে পরিবারের সকল সদস্যদের নিয়ে উমরাহ হজ্ব পালন করেন, পরবর্তিতে তিনি বহুবার পবিত্র হজ্ব পালন করেন। আলহাজ্ব মো: মাইনুল হোসেন খান নিখিল ব্যাক্তি জিবনে একজন সদালাপী , নম্র, ধার্মিক , সমাজ সেবক , ব্যবসায়ী হিসেবে তিনি ব্যাপক সফলতা লাভ করেছেন।

ফ্রান্স যুবলীগের একজন কর্মী হিসেবে উনারমত নেতার সান্নিধ্য লাভ করেছি। আমি উনার জন্মদিনে শুভেচ্ছা সহ দোয়া ও সুস্বাস্থ্য কামনা করি। এবং আমি বিশ্বাস করি বর্তমান নেতৃত্ব মূছে দেবে অতিথের সকল গ্লানী। এগিয়ে যাবে মানবতার যুবলীগ।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

মিজানুর রহমান মিজান- ফ্রান্স যুবলীগ।