ঢাকা ১১:৩৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

করোনা শেষে ভ্রমণ করতে চাইলে যা করবেন

করোনা সারাবিশ্বে কেড়ে নিচ্ছে হাজার হাজার প্রাণ। আক্রান্ত হচ্ছে প্রচুর মানুষ। এই মহামারীর সময়ে সাধারণ মানুষের ভ্রমণ নিষেধ। তবুও অনেকেই জরুরি সেবা বা করোনা শেষে ভ্রমণ করবেন। ফলে তাদেরও ব্যক্তিগত সুরক্ষার কথা মাথায় রাখতে হবে। বর্তমানে বা করোনা শেষে ভ্রমণে কী কী নিয়ম মেনে চলবেন? বিস্তারিত জানাচ্ছেন মো. বিল্লাল হোসেন-

১. জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট থাকলে ভ্রমণ না করাই উত্তম। বরং দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন।
২. যাদের জ্বর ও কাশি আছে, তাদের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকুন।
৩. নিয়মিত সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা অ্যালকোহল দিয়ে তৈরি স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন।
৪. নাক, মুখ ও চোখে হাত দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।
৫. হাঁচি-কাশির সময় টিস্যু বা রুমাল ব্যবহার করুন।
৬. ব্যবহারের পর যথাস্থানে ফেলুন। যাতে অন্য কেউ সংক্রমিত না হয়।
৭. টিস্যু বা রুমাল না থাকলে হাঁচি এবং কাশির সময় হাতের কনুই ব্যবহার করুন।
৮. ভ্রমণে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করুন। মাস্কটি যেন পুরো নাক ও মুখ ঢেকে রাখে।
৯. যেসব মাস্ক একবার ব্যবহারযোগ্য, তা একবারই ব্যবহার করুন।
১০. মাস্ক ব্যবহারের পরই নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে দিয়ে স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন।
১১. ভ্রমণকালে অসুস্থ হয়ে গেলে নিকটস্থ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যোগাযোগ করুন।
১২. পূর্ববর্তী রোগের বর্ণনা বিস্তারিতভাবে ডাক্তারকে অবহিত করবেন।

ট্যাগস
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

করোনা শেষে ভ্রমণ করতে চাইলে যা করবেন

আপডেট সময় ০৪:৫৬:৫৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুন ২০২০

করোনা সারাবিশ্বে কেড়ে নিচ্ছে হাজার হাজার প্রাণ। আক্রান্ত হচ্ছে প্রচুর মানুষ। এই মহামারীর সময়ে সাধারণ মানুষের ভ্রমণ নিষেধ। তবুও অনেকেই জরুরি সেবা বা করোনা শেষে ভ্রমণ করবেন। ফলে তাদেরও ব্যক্তিগত সুরক্ষার কথা মাথায় রাখতে হবে। বর্তমানে বা করোনা শেষে ভ্রমণে কী কী নিয়ম মেনে চলবেন? বিস্তারিত জানাচ্ছেন মো. বিল্লাল হোসেন-

১. জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্ট থাকলে ভ্রমণ না করাই উত্তম। বরং দ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ নিন।
২. যাদের জ্বর ও কাশি আছে, তাদের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকুন।
৩. নিয়মিত সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা অ্যালকোহল দিয়ে তৈরি স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন।
৪. নাক, মুখ ও চোখে হাত দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।
৫. হাঁচি-কাশির সময় টিস্যু বা রুমাল ব্যবহার করুন।
৬. ব্যবহারের পর যথাস্থানে ফেলুন। যাতে অন্য কেউ সংক্রমিত না হয়।
৭. টিস্যু বা রুমাল না থাকলে হাঁচি এবং কাশির সময় হাতের কনুই ব্যবহার করুন।
৮. ভ্রমণে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করুন। মাস্কটি যেন পুরো নাক ও মুখ ঢেকে রাখে।
৯. যেসব মাস্ক একবার ব্যবহারযোগ্য, তা একবারই ব্যবহার করুন।
১০. মাস্ক ব্যবহারের পরই নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে দিয়ে স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন।
১১. ভ্রমণকালে অসুস্থ হয়ে গেলে নিকটস্থ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যোগাযোগ করুন।
১২. পূর্ববর্তী রোগের বর্ণনা বিস্তারিতভাবে ডাক্তারকে অবহিত করবেন।